অনলাইনে আছেন

  • জন ব্লগার

  • ১৬ জন ভিজিটর

রাষ্ট্রধর্ম হিসেবে ইসলাম থাকা বাঞ্জনীয় কেন...?

লিখেছেন কহেন কবি শনিবার ২২ অগাস্ট ২০২০

রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম কেন আছে? এটা থাকার প্রয়োজন কি? রাষ্ট্র কি সালাত আদায় করে? রাষ্ট্র কখনো মসজিদে যায়? গীর্জায় যায়? মন্দিরে গিয়ে পূজা করে? উত্তর- না। রাষ্ট্র কখনো সারাদিন না খেয়ে সাওম পালন করেছে? রাষ্ট্রের কোন ইবাদত নেই। তাহলে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম কেন থাকবে? একটা রাষ্ট্রে হিন্দু,বৌদ্ধ,খ্রিস্টান এবং মুসলিমগণেরা থাকেন তাহলে রাষ্ট্রধর্ম কেন ইসলাম হবে? হ্যাঁ এজন্যই হয়েছে মুসলিমরা এখানে সংখ্যাগরিষ্ঠ। যদি এজন্যই হয়ে থাকে তাহলে ভারতে হিন্দু সংখ্যাগরিষ্ঠ থাকার পরেও ভারতের রাষ্ট্রধর্ম ধর্মনিরপেক্ষতা। অন্যদিকে তুরষ্কের ৯৫% জনগণ মুসলিম হওয়ার পরেও সেখানে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম নেই। তাহলে বাংলাদেশে কেন থাকবে?

বাংলাদেশ কি কখনো পাঠা বলির কারণে কোন হিন্দুকে হত্যা করেছে? আজ পর্যন্ত শোনা যায়নি। কিন্তু আমরা ভারতের দিকে দৃষ্টিপাত করলে দেখতে পাই যে, সেখানে গরুর মাংস খাওয়ার অপরাধে মুসলমানকে পিটিয়ে হত্যা করেছে। তাহলে ধর্মনিরপেক্ষতা বজায় রইলো কিভাবে?

বিজ্ঞানের একটি সহজ কথা হলো এই যে~ প্রত্যেক জিনিসের ধর্ম আছে। রাষ্ট্রের ও একটি ধর্ম থাকা উচিত। এর অর্থ হলো বাংলাদেশ একটি ইসলামিক কান্ট্রি। এই বাংলাদেশ চলবে ইসলামের নিয়মানুসারে। ইসলাম কি? ইসলাম হলো জীবনবিধান। শুধু জীবনবিধান নয় পূর্ণাঙ্গ জীবনবিধান।

জন্মের পর আমি রবীন্দ্রসঙ্গীত শুনবো নাকি কোর'আন তেলাওয়াত শুনবো এটা বলে দিবে সংবিধান। আর সেই সংবিধান রচিত হবে কোর'আনের আলোকে। কিন্তু বাংলাদেশের সংবিধান তৈরি করেছেন তাহারা। তাহাদের মদ পান করতে হয়। সেজন্য গণপ্রজাতন্ত্রী সরকারের অনুমোদিত মদের লাইসেন্স থাকে। কিন্তু কোর'আনে স্পষ্ট রয়েছে মদ্যপান হারাম।
তাহলে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম থেকে লাভ কি হলো?

আদৌ কি এই বাংলাদেশ ইসলামের নিয়মানুসারে চলছে? যেমন- ইসলামে সুদ নিষিদ্ধ। কিন্তু এই রাষ্ট্র টিকে আছে সুদের উপর ভিত্তি করে। যিনা করলে ইসলামের শাস্তি হলো পাথর মেরে হত্যা করা, কিন্তু বাংলাদেশে যিনাহ করলে বার্গার উপহার দেয়া হয়। ইসলামে ধর্ষণের শাস্তি মৃত্যুদন্ড কিন্তু এখানে ধর্ষণকারীকে ফুলের মালা দেয়া হয়। তাহলে এই রাষ্ট্রের ধর্ম ইসলাম রেখে লাভ কি?

অশোক কুমার ঘোষ নামক এই হিন্দু ব্যক্তির দাবি আমরা সবাই মিলেমিশে যুদ্ধ করে দেশ স্বাধীন করেছি রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম করার জন্য নয়! এই রাষ্ট্রে আরো বিভিন্ন ধর্মের মানুষ বসবাস করে। প্রশ্ন হলো বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান ভাষণ দেয়ার সময় যখন বলেছেন~ ইনশা'আল্লাহ এই দেশকে মুক্ত করেই ছাড়বো তখন প্রতিবাদ কেন করা হয়নি? তখন কেন বলা হয়নি যে~ যুদ্ধ করবে হিন্দু, খ্রিস্টান ও মুসলিমরা সো আপনি শুধু ইনশা'আল্লাহ বলতে পারেন না। আপনাকে মা-কালী, হরে রাম, জয় শ্রী-রাম বলতে হবে!!!

যুদ্ধের পূর্বে প্রায় অধিকাংশ হিন্দু ভারতে চলে গেলেন। ভারত তাদের সাদরে গ্রহণ করলেন। সেসব হিন্দুরা শুধুমাত্র দেশকে ভোগে পাঠিয়ে দিয়ে নিজের সন্তান-পরিবার নিয়ে শান্তির নীড়ে গিয়ে বাসা বাঁধলেন! তখন কেন বলা হয়নি এই দেশ তো তোমাদের। পালাচ্ছো কেন তোমরা?

(২)

প্রশ্ন হলো রাষ্ট্রের ধর্ম ইসলাম কেন দেয়া হয়? এর কারণ হলো ভোট বাণিজ্য। যেহেতু এই দেশের অধিকাংশ মানুষ মুসলিম সেহেতু রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম করলে ভোট বেশি পাওয়া যাবে।

ধরুন আপনার একটা গরু আছে। কিন্তু সেই গরু দুধ দেয় না। সেই গরুর মাংস ও খাওয়া যাবে না। তাহলে এই গরু রেখে লাভ কি? ঠিক একইভাবে বাংলাদেশের রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম আছে। কিন্তু সেটা কোন প্রকার কাজে লাগে না। তাহলে এই রাষ্ট্রধর্ম রেখে লাভ কি?

রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম এবং বটগাছঃ-
***************************
রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম থেকে লাভ না হলেও এটি একটি বটগাছের মত। যে ফল দেয় না, যে ফুল দিয়ে সুভাস ছড়ায় না, যে কাঠ দেয় না কিন্তু গ্রীষ্মকালে অন্তত ছায়া দেয়। যেমন~ রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম থাকার কারণে মেয়েরা এখনো হিজাব পড়তে পারছে, এখনো মসজিদে আযান হয়, এখনো ওয়াজ মাহফিল হয়, এখনো সমকামিতা প্রকাশ্যে আসতে পারেনি, এখনো মদ ওপেন বিক্রি হচ্ছে না, এখনো বিয়ে টিকে আছে, লিভ টুগেদার ওপেনলি হচ্ছে না। এই বটগাছ কেটে ফেললে সবকিছুই ওপেনলি হবে তখন আর আইনি কোন বাধা থাকবে না।

আর একটু গভীরে গিয়ে চিন্তা করি~ এই দেশে হিন্দুরা রাজার হালে বসবাস করছে তারপরেও তাদের মন ভরছে না। তারপরেও তারা রাষ্ট্রের ধর্মের দিকে নজর দিচ্ছে কারণ কি? কারণ হলো উপরোক্ত সকল অধ্যায় গুলো সমাজে চালু করা।

রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম হয় কিন্তু রাষ্ট্রধর্ম কখনো হিন্দু বা বৌদ্ধ বা খ্রিস্টান হয় না কেন? এর কারণ হলো বাকি ধর্মের কোন যোগ্যতা নেই। একমাত্র ইসলাম ধর্মই পারে রাষ্ট্র পরিচালনা করতে। একমাত্র কোর'আনেই উল্লেখ রয়েছে ~ অর্থনীতি, সমাজনীতি, রাজনীতি, ধর্মনীতি, সাহিত্য, বিজ্ঞান ইত্যাদি।

তাই এই বটগাছকে রক্ষার করার জন্য প্রত্যেক পাব্লিক পাশের বাজার থেকে সাদা কাফনের কাপড় ক্রয় করে রেখে দিবে এতে সন্দেহের কিছু নেই। সাদা কাফনের কাপড় দেখে ভয়ে যেন ধূতি খুলে না যায় সেদিকে দাদাবাবুদের খেয়াল রাখা উচিত। ইসলামিক বোমার কাছে পারমাণবিক বোমা যে ক্ষত-বিক্ষত তা কিন্তু বহুবার বহুবার প্রমাণিত হয়েছে।

অতএব মুমিনদের হারানো সম্ভব নয় তারা বন্দুকের নলে জান্নাত দেখে।


রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম
০ টি মন্তব্য      ৪৭২ বার পঠিত         

লেখাটি শেয়ার করতে চাইলে: